সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মিথ্যাচার: কঠোর মনিটরিং জরুরি

বর্তমান সরকারের সফলতা সমূহের মধ্যে অন্যতম একটি সফলতা হলো ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণ। ২০০৯ সালে যখন আওয়ামী লীগ সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশের ঘোষণা দেয় তখন বরাবরের মত দেশ বিরোধী চক্রগুলো ঠাট্টা মশকরা করছে এবং বিভিন্ন ধরনের কটুক্তি করছে। অথচ আজ বাংলাদেশ সত্যিকার এক ডিজিটাল বাংলাদেশ পরিণত হয়েছে। এখন একেবারে প্রত্যন্ত অঞ্চলের লোকজনও ডিজিটাল সুবিধা পাচ্ছে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট, অনলাইনে আবেদন, মাইগভ অ্যাপ, ফোরজি, ডিজিটাল জনশুমারি ও গৃহগণনা সহ সব ধরনের ডিজিটাল সুবিধা, বিদ্যুৎ সুবিধা এবং ইন্টারনেট সুবিধা পাচ্ছে প্রান্তিক জনগোষ্ঠী সহ সারা বাংলাদেশের মানুষ। এই অবদান বর্তমান সরকারের এক অভূতপূর্ব অবদান। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এক বলিষ্ঠ সাহসিকতা। তাছাড়া সাম্প্রতিক উদ্বোধন করা হয়েছে বহুল আকাঙ্ক্ষিত স্বপ্নের পদ্মাসেতু। দেশের এইসব উন্নয়ন ও সফলতা দেখে এক শ্রেনীর দেশ বিরোধী চক্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বিশেষ করে ফেসবুক ও ইউটিউবে বর্তমান সরকারকে নিয়ে নানাবিধ মিথ্যাচার করছে প্রতিনিয়ত, এছাড়া এরা বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ধরনের গুজবও রটনা করছে। এটি বেশ শঙ্কার একটি বিষয়।

গ্রামের লোকজন ইউটিউব ও ফেসবুকে যা দেখে তাই তারা সহজেই বিশ্বাস করে নেয়; যা এক প্রকার অশনি সংকেত বহন করে। এই সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশের যারা বিরোধীতা করছে আজ তারাই এই সরকারের নির্মিত ডিজিটাল সুবিধা ভোগ করে সরকারের বিরুদ্ধে চরম মিথ্যাচার করছে দেদারসে। এতে বর্তমান সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে। তাই সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের উচিত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম(ইউটিউব ও ফেসবুক) আরো কঠোরভাবে মনিটরিং করা এবং এদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা। ইউটিউবে ব্যাঙ্গের ছাতার মত হাজার হাজার চ্যানেল রয়েছে যারা অনর্গল সরকারের বিরুদ্ধে এবং সরকারের সকল প্রকার সফলতার বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করে যাচ্ছে। ফেসবুকেও এই ধরনের পেজ এবং আইডির ইয়ত্তা নেই। সবগুলো যেনো মিথ্যাচার করার জন্য গড়ে উঠছে। তারা মিথ্যাচার করে যাচ্ছে কিন্তু তাদের বিরুদ্ধে কোনো প্রকার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছেনা; ফলে তাদের মিথ্যাচার ও গুজবের তীব্রতা জ্যামিতিক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। অতি- সত্তর এসব মিথ্যাচারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা জরুরি। সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের প্রতি বিশেষ অনুরোধ রইল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কঠোর মনিটরিংয়ের মাধ্যমে এইসব মিথ্যাচারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়ে সত্য প্রতিষ্ঠা করবে বলে -প্রত্যাশা করছি।

 

বিজ্ঞাপন

মো. নিজাম গাজী, বঙ্গবন্ধু শতবর্ষ চূড়ান্ত কুইজ বিজয়ী (৪৮ তম), কলামিস্ট ও সাহিত্যিক।

শীর্ষ সংবাদ:
লালমোহনে আমের মুকুলের ঘ্রাণে ভরে উঠেছে বাগানগুলো অসামাজিক কার্যক্রম চালানোর দায়ে ইউপি চেয়ারম্যানের বোনসহ আটক ৪ কিশোরগঞ্জে বাকৃবির কৃষি প্রকৌশলীদের সম্প্রসারণ মাঠ সফর গাজীপুরে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের কয়েক ঘন্টা পরই ফের দখল নরসিংদীতে বাস-কাভার্ডভ্যানের সংঘর্ষ, ২ চালক নিহত ভারতীয় যুবক কারাভোগ শেষে দেশে ফিরলেন গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য ধরে রাখতে পালকিতে বর-কনে, গরুর গাড়িতে বরযাত্রী রুদ্ধদ্বার বৈঠক শেষে আমীর খসরু বললেন ‘কিছুই বলার নেই’ বড় দুঃসংবাদ পেল ইমরান খানের পিটিআই গাজীপুরে ভবনের ছাদ থেকে পড়ে শিক্ষার্থীর মৃত্যু ৩৮ বছর পর বিশ্ব কোরআন প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের রেকর্ড ১৩ বছর পালিয়ে থেকেও শেষ রক্ষা হলো না, র‍্যাবের হাতে ধরা তানোরে আলুর দাম নিয়ে কৃষকদের দুশ্চিন্তা মহাসড়কে অবৈধ দোকান উচ্ছেদ অভিযান টেকনাফে হোয়াইক্যংয়ে এক দিন মজুরকে পিঠিয়ে হত্যা চাটমোহর উপজেলা আ. লীগ সভাপতির মৃত্যুতে এমপি মকবুলের শোক ঝিনাইদহে অবৈধভাবে মাটি কাটা ও বিক্রির অপরাধে ১ লক্ষ টাকা জরিমানা জয়পুরহাটে পুলিশ সুপার ম্যারাথন দৌড় প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়: ফুল দেওয়াতে সীমাবদ্ধ শিক্ষক সমিতির কার্যক্রম কালাইয়ে ৫৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একটিতেও নেই ম্যানেজিং কমিটি