নদীর ঢেউয়ে জীবন জড়াচ্ছে বাপ-দাদার পেশায়,শিক্ষা বিমুখ জেলে পল্লীর অধিকাংশ শিশু

রাজধানী টাইমসের সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মাত্র ১৬ বছরের কিশোর মো. রাব্বী। তার এই বয়সী অন্যান্য কিশোররা বই-খাতা নিয়ে যাচ্ছে স্কুলে। অথচ কিশোর রাব্বীর একদিনের জন্যও যাওয়া হয়নি স্কুলে। সে রোজ নিয়ম করে যাচ্ছে নদীতে মাছ শিকারে। গত ৬ বছর ধরে মেঘনার উত্তাল ঢেউয়ের সঙ্গে যুদ্ধ করে অন্যান্য জেলেদের সঙ্গে মাছ শিকার করছে কিশোর রাব্বী।

তার মতো ভোলার লালমোহন উপজেলার জেলেপল্লীর এমন অসংখ্য শিশু-কিশোর পড়ালেখা না করে নদীতে মাছ শিকার করছে। উপজেলার ধলীগৌরনগর ইউনিয়নের বাতিরখাল মৎস্যঘাট এলাকার বাসিন্দা কিশোর রাব্বী।

সে জানায়, আমাদের অসচ্ছল পরিবার। পরিবারের পক্ষে পড়ালেখার খরচ জোগানোর সাধ্য নেই। যার জন্য গত ৬ বছর ধরে স্থানীয় জেলেদের সঙ্গে নদীতে মাছ ধরতে যাচ্ছি। যেদিন নদীতে মাছ ধরতে নামি সেদিন গড়ে ৩০০ টাকার মতো পাই। এই টাকা থেকে কিছু নিজেও খরচ করি, পরিবারকেও দেই।

বিজ্ঞাপন

বাতিরখাল মৎস্যঘাট এলাকার ১০ বছর বয়সী শিশু মো. রিপন। তার জীবনও দোলে নদীর ঢেউয়ে। শিশু রিপনের এই বয়সে থাকার কথা স্কুলে। অথচ সেও মেঘনার উত্তাল ঢেউয়ের সঙ্গে যুদ্ধ করে নদীতে মাছ শিকার করে। তার পরিবারে মা-বাবা, এক ভাই-এক বোন আছে। বাবা চট্টগ্রামে কাজ করেন বালুর জাহাজে।

শিশু রিপন জানায়, স্বজনদের সঙ্গে প্রথমে শখ করে নদীতে যাওয়া শুরু করি। সেই শখই এখন পেশা। প্রথম প্রথম নদীর উত্তাল ঢেউ দেখে ভয় হতো। তবে এখন সেই ভয় কেটে গেছে। এখন স্থানীয় অন্যান্য জেলেদের সঙ্গে নিয়মিত মাছ শিকারে যাই। যেদিন মাছ শিকারে যাই সেদিন কখনো ২০০, কখনো ৫০০ টাকা পাই। আবার কখনো খালি হাতেই ফিরতে হয়। যখন নদীতে গিয়ে মাছ ধরে টাকা পাই, তখন ঐ টাকা মায়ের হাতে তুলে দেই।

ঐ মৎস্যঘাটের ১৪ বছর বয়সী আরেক শিশু মো. আল-আমিন। বিদ্যালয়ের বারান্দায় তার পা পড়েছে ঠিকই। তবে তা দীর্ঘাস্থায়ী হয়নি। কোনো রকমে প্রাথমিকের গণ্ডি পেরিয়ে ভর্তি হয়েছিল ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে। তখন থেকে মাঝে মধ্যে স্বজনদের সঙ্গে নদীতে যাওয়া শুরু হয় শিশু আল-আমিনের।

বিজ্ঞাপন

একপর্যায়ে নদীতে মাছ শিকার করা তারও পেশা হয়ে যায়। মাছ শিকার পেশা হওয়ায় শিশু আল-আমিন ছেড়ে দিয়েছে পড়ালেখা। এখন তার রোজ যুদ্ধ দক্ষ জেলে হওয়ার।

জেলেপল্লীর শিশুদের এমন শিক্ষা বিমুখতার বিষয়ে ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের নিয়ে কাজ করা বেসরকারি এনজিও সংস্থা ‘দ্বীপ উন্নয়ন সোসাইটির’ নির্বাহী পরিচালক মো. ইউনূছ বলেন, পরিবারের দরিদ্রতা, অসচেতনতা এবং স্কুল দূরবর্তী স্থানে হওয়াসহ আরো বেশকিছু কারণে জেলেদের অধিকাংশ সন্তানরা তেমন পড়ালেখা করছে না। যার কারণে ঐসব শিশুরা খুব কম বয়সেই তাদের বাপ-দাদার পেশায় জড়িয়ে যাচ্ছে। তবে এসব শিশু এবং তাদের পরিবারের মাঝে সরকারিভাবে সচেতনতামূলক কর্মকাণ্ড পরিচালনার পাশাপাশি আর্থিক বরাদ্দ প্রদান করা হলে জেলেপল্লীর শিশুরাও শিক্ষায় আগ্রহী হয়ে সুশিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে উঠবে।

লালমোহন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. তৌহিদুল ইসলাম জানান, জেলেপল্লীর যেসব শিশুরা বিদ্যালয় বিমুখ বা ঝরে পড়ছে তাদেরকে শিক্ষার আওতায় আনতে আমরা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবো। আমরা চাই প্রতিটি শিশুই সুশিক্ষায় শিক্ষিত হোক। এছাড়া জেলেদের জন্য সরকারিভাবে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা চলমান রয়েছে। ভবিষ্যতে যদি সরকারিভাবে জেলেদের জন্য আরো কোনো বরাদ্দ আসে আমরা তা জেলেদের যথা সময়ে পৌঁছে দেবো।

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল rajdhanitimes24.com এ লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয়- মতামত, সাহিত্য, ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার ছবিসহ লেখাটি পাঠিয়ে দিন rajdhanitimes24@gmail.com  এই ঠিকানায়।

শীর্ষ সংবাদ:
সঞ্জীবা গার্ডেনের সেপটিক ট্যাংকে মিলল ৪ দলা মাংস এমপি আনারের মরদেহের মাংস উদ্ধারের দাবি অপরাধী হলে আজিজ-বেনজীরের বিচার হবে: ওবায়দুল কাদের বিমানের নতুন এমডি জাহিদুল ইসলাম বাবা হত্যার প্রমাণ চান এমপি আনারকন্যা ডরিন আঘাত হানতে শুরু করেছে ঘূর্ণিঝড় ‘রেমাল’ উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে লালমোহনে রাতের আধারে ৩০টি দোকান ভাংচুর ও লুটপাট কাউখালীতে পাঁচ বছরেও শেষ হয়নি সেতু নির্মাণ কাজ। জনগণের ভোগান্তি চরমে ছাত্রদলের হামলায় ছাত্রদল নেতা সবুজ গুরুতর আহত মেয়াদোত্তীর্ণ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ, খুব দ্রুত হবে তৃতীয় সম্মেলন ঘূর্ণিঝড় রেমাল সতর্কতায় কোস্টগার্ডের মাইকিং ‘আগামীকাল সন্ধ্যায় আঘাত হানতে পারে রেমাল’ পলাশে রেললাইনের পাশ থেকে অজ্ঞাত মরদেহ উদ্ধার ভুল চিকিৎসায় প্রাণ গেল স্কুল ছাত্রীর গরু হাটে ব্যাহত ২ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৯ শতাধিক ছাত্র-ছাত্রীর শিক্ষা ব্যবস্থা এমপি আনার হত্যা: প্রধানমন্ত্রী জানেন পিতা হারানোর কষ্ট – এমপি কন্যা কোন বিশৃঙ্খলা ছাড়াই শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সিলেটে এ বছর কুরবানী পশু প্রস্তুত ৪ লাখ ৩০৩৯৭ দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা নিজ অবস্থান থেকে সতর্ক থাকলে সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়া সম্ভব: ডিসি আরিফুজ্জামান এমপি আনারের লাশ পাওয়ার সম্ভাবনা নেই: ডিবি