তালগাছের গ্রাম কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম

রাজধানী টাইমসের সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

গাছ মানুষকে অক্সিজেন দেয় ও ক্ষতিকারক কার্বনডাই অক্সাইড গ্রহণ করে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে। গাছ ছায়া দেয় ও প্রাকৃতিক দূর্যোগ থেকে রক্ষা করে কিন্তু গাছ যে আমাদেরকে বজ্রপাত থেকে রক্ষা করে তা আমরা অনেকেরেই জানা নেই। হ্যাঁ রবীঠাকুরের তাল গাছের কথা বলছি।

তাল গাছ বজ্রপাত নিরোধক গাছ হিসেবে প্রমানিত হয়েছে। গত ৩ বছরে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার সাতঘড়িয়া গ্রামে কেউ বজ্রপাতে মারা যায়নি বলে ওই এলাকার লোকজন জানিয়েছেন।

তাল গাছ এক পায়ে দাঁড়িয়ে, সব গাছ ছাড়িয়ে,উঁকি মারে আকাশে’ তাল গাছ সম্পর্কে এমন ভাবে আর কে-ই বা ভেবেছেন রবীদ্রনাথ ছাড়া? গ্রাম বাংলার অতি চির চেনা ফল তাল। আকাশ পানে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে থাকা সারি সারি তালগাছ আর গাছে-গাছে ধরা তালফল ও বাবুই পাখির ঝুলন্ত বাসা কতনা মনোহর এবং পাখির কলতান কার না ভালো লাগে। তবে তাল গাছের আদি নিবাস আফ্রিকা হলেও কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের সাতঘরিয়ায় তাল গাছের গ্রাম বললে ভুল হবে না।

বিজ্ঞাপন

এটি যেন তালগাছের গ্রাম। সড়কের দুই পাশ সাড়ি সাড়ি তাল গাছ লাগানো তাছাড়াও বেশির ভাগ বাড়ির আঙিনায় দেখা মিলে পরিবেশ বান্ধব এ গাছের। ছোট-বড় তালগাছে ঘেরা মনোমুগ্ধ পরিবেশ যে কাউকে আকৃষ্ট করে। আর এ দৃশ্যটি মোবাইল ক্যামেরার ফ্রেমে বন্দি করতে বিভিন্ন এলাকা থেকে এ দৃশ্য উপভোগ করতে ছুটে আসেন প্রকৃৃতি প্রেমী মানুষ এবং এসকল ছবি পোষ্ট করেন
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

সীমান্ত ঘেঁষা জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ঐতিহাসিক জগন্নাথদীঘি ইউনিয়নের সাতঘরিয়ায় গ্রামের সড়কের দুই পাশে সারি সারি তালগাছ। দৃষ্টিনন্দন সেই সড়কে ছবি তুলছেন কয়েকজন প্রকৃতি প্রেমী।

চট্টগ্রামের সিডিএ থেকে মোঃ সোহেল চৌধুরী তিনি আগ্রাবাদের একটি বেসরকারী কোম্পানীতে চাকুরী করেন এসেছেন তিনি বলেন, সড়কের দুই পাশে অগণিত তালগাছ সাতঘরিয়া গ্রামের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বৃদ্ধি করেছে যা দেখতে আমাদের এখানে ছুটে আসা।

বিজ্ঞাপন

তাই চট্টগ্রাম থেকে কুমিল্লা আসার পথে এখানে বিড়তি দেয়া প্রাকৃতি প্রেমিদের জন্য এটি চমৎকার একটি দৃশ্য। আয়তনের দিক থেকে জেলার চৌদ্দগ্রামের জগন্নাথদীঘি ইউনিয়নের গ্রামেটি বড়। এর প্রায় প্রতিটি সড়কের দুই পাশে বজ্রপাত নিরোধক ও পরিবেশ বান্ধব সারি-সারি তালগাছ লাগিয়েছেন ওই এলাকার গ্রামবাসীগণ। এমনকি বাড়ির আঙিনাতেও রয়েছে ছোট-বড় তালগাছ।

৭৫বছরের প্রবীন সাতঘরিয়া গ্রামের বাসিন্দা মো. আবদুল্লাহ। তিনি বলেন, এগ্রামের আদিকাল থেকেই আমরা তালগাছ রোপণে যেমন ছিলাম বর্তমানে আমাদের ছেলেরাও এর ধারাবাহিকতা ধরে রেখেছে। সারি সারি তালগাছে যেমন গ্রামের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করছে তেমনি প্রাকৃতিক দুর্যোগ বজ্রপাত মোকাবেলাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করছে। গত ৩ বছরে বজ্রপাতে আমাদের এ গ্রামে কেউ মারা যায়নি।

কৃষি সমপ্রসারণ অধিদফতর কুমিল্লার উপ-পরিচালক মো. মিজানুর রহমান বলেন, মানুষকে উদ্বুদ্ধ করার জন্য জেলার ১৭ উপজেলায় ৫০ হাজার তালের বীজ রোপণ করা হয়েছে। এসব বীজ সড়কের পাশে না লাগিয়ে ফসলি মাঠের আইলে লাগানো হবে।

তিনি বলেন, তালগাছ বজ্রপাত নিরোধক ও পরিবেশ বান্ধব। নির্বিচারে এ গাছ উজাড় করার ফলে বর্তমান সময়ে বজ্রপাতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে গেছে। মাঠে কৃষকদের মৃত্যুর ঝুঁকি কমাতে কৃষি বিভাগ এ উদ্যোগ নিয়েছে। সরকারি অর্থ বরাদ্দ পেলে আগামী বছর এক লাখ বীজ রোপণ করা হবে বলে তিনি জানান।

এ বিষয়ে কুমিল্লা বন বিভাগের প্রধান সহকারী মো. জাকির হোসেন বলেন, তালগাছ রোপণে সরকারিভাবে কোনো অর্থ বরাদ্দ নেই। তারপরও জনস্বার্থে বন বিভাগের কর্মকর্তাদের ব্যক্তিগত ফান্ড থেকে এক হাজার চারা রোপণ করা হয়েছে।

সব ধরনের মাটিতে তাল গাছ জন্মে। সহজ রোপন পদ্ধতি, কষ্ট সহিষ্ণু, কম যতে উৎপাদন ও বৃদ্ধির ফলে গ্রামীণ সড়ক, মহাসড়ক, বাঁধ বেড়িবাঁধ, রেল লাইন, পুকুর পাড়, খালের পাড়, নদীর পাড়, জমির আঁইল, পতিত জমি ও বসতবাড়ীর শেষ সীমানায় তালগাছ রোপন উপযোগী স্থান।

তালগাছের গভীর মূলী ও শাখা প্রশাখা নেই বলে জমির আঁইলে রোপনে খাদ্য পুষ্টি ও ছায়া দিয়ে ফসলের ক্ষতি করে না। তালের পাতা দিয়ে হাত পাখা, মাদুর, টুপি, ঘরের ছাউনী, চাটাই, ছাতা, লাকরী হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

গাছের ফাইবার বা আঁশ থেকে বিভিন্ন রকমের সৌখিন সামগ্রী তৈরি হয়, যথা- টুপি, ঝুড়ি, পাপোষ, ছোট বাষ্কেট, ও মাছ ধরার খলশানীতে ব্যবহৃত হয়। পুরুষ তাল গাছের ফুল বা জটা হতে রস সংগ্রহ করে তা দিয়ে পাটালি গুড়, ভিনেগার, পিঠা, বড়া, লুচি, খাবার ইত্যাদি তৈরি করা হয়। পাকা তালের রস দিয়ে পিঠা, বড়া, খির, পায়েস তৈরি করা হয়। কচি ও কাঁচা তালের নরম শাঁস মুখরোচক পুষ্টিকর ।

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল rajdhanitimes24.com এ লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয়- মতামত, সাহিত্য, ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার ছবিসহ লেখাটি পাঠিয়ে দিন rajdhanitimes24@gmail.com  এই ঠিকানায়।

শীর্ষ সংবাদ:
রাফায় ইসরায়েলের ভয়াবহ হামলা, ১৭ ফিলিস্তিনি নিহত ড্রেনেজ সংস্কারের নামে ১১’শ কোটি টাকা জলে, সিসিকের মেয়রকে দুষছেন নগরবাসী দক্ষিণ এশিয়ার দ্বিতীয় ব্যয়বহুল শহর ঢাকা সিলেটের নদ-নদীতে হু হু করে বাড়ছে পানি অতীতের চেয়ে বর্তমান ছাত্রলীগ অনেক শক্তিশালী মিয়ানমার সীমান্ত সরকারের কঠোর নজরদারিতে: কাদের কাউখালীতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে কামার শিল্পীরা সিলেট সুরমা ও কুশিয়ারা নদীর পানি বিপৎসীমার উপরে দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন প্রধানমন্ত্রী নগরকান্দার তালমা ইউনিয়নে ভিজিএফের চাল বিতরন সিলেটের শুল্ক স্টেশন গুলোতে চুনাপাথর আমদানিতে বেড়েছে রাজস্ব আদায় কাউখালীতে শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে গরুর হাট, পশুর আমদানি প্রচুর, ক্রেতা কম বর্তমান সরকার গরীব অসহায় দুস্থদের সরকার- মেয়র শেখ আ: রহমান ঈদের ৩ দিন আগেও যেসব এলাকায় ব্যাংক খোলা ঈদযাত্রায় সড়কে চাপ আছে, যানজট নেই: ওবায়দুল কাদের লালমোহনে দুই বন্ধুর গণধর্ষণের শিকার কিশোরী তানোরে পৃথক ঘটনায় ৩ জনের অপমৃত্যু শ্রীপুরে র‌্যাব পরিচয়ে ১৯ লাখ টাকা ছিনতায়ের ঘটনায় ৫ ডাকাত গ্রেফতার লালমোহনে অটোরিকশার চাকায় পৃষ্ট হয়ে ৫ বছরের শিশু নিহত দেখতে ঘাসের চাঁদরে ঢাকা, আসলে স্কুল মাঠে পানিতে ভাসছে ক্ষুদিপানা