শিক্ষা দিবস ও আমাদের প্রত্যাশা

রাজধানী টাইমসের সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

শিক্ষা আমার অধিকার, এই অধিকার সবার চাই। শিক্ষা কোন পণ্য নয়, শিক্ষা আমার অধিকার । শিক্ষা মনুষ্যত্বকে জাগিয়ে তোলে,মানবিকতা সৃজনশীলতাকে জাগিয়ে তোলে। শিক্ষা মানুষের মৌলিক অধিকার আর তাই শিক্ষার আর্থিক দায়িত্ব রাষ্ট্রকেই নিতে হয়। পৃথিবীর যে দেশ শিক্ষাখাতে যতবেশি বিনিয়োগ করেছে সেই দেশ ততোবেশি উন্নত হয়েছে এবং সেই সাথে সভ্যতা বিকাশেও রেখেছে অনন্য উচ্চতার ভূমিকা । আমরাও শিক্ষায় উন্নত হতে চাই, মানবিক, দেশপ্রেমিক, উন্নত রুচির মানুষ হতে চাই। দেশপ্রেমবর্জিত শিক্ষা এবং নামমাত্র গুরুত্বপূর্ণ কোকারিকুলাম শিক্ষা শিক্ষা দিয়ে আমরা কখনোই শিক্ষার এবং আমাদের কাঙ্কিত উন্নতির লক্ষ্যে পৌচতে পারবো না। একটি সার্বজনীন, স্যাকুলার, বিজ্ঞানভিত্তিক একই পদ্ধতির মানবিক, সৃজনশীল শিক্ষার মধ্য দিয়ে ত্রিশ লক্ষ শহীদ ও দুই লক্ষ মা-বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে অর্জিত বাংলাদেশে সামনের দিকে এগিয়ে যাবে। ১৭ সেপ্টেম্বর মহান শিক্ষা দিবস। ১৯৬২ সালে তৎকালীন পাকিস্তানি সামরিক জান্তা আইয়ুব সরকার শিক্ষা সংকোচন নীতির বিরুদ্ধে ছাত্র-জনতার রুখে দাঁড়ানোর গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস যা আজও শিক্ষা আন্দোলনের প্রেরণা হয়ে আছে।

গণবিরোধী ঐ শিক্ষানীতির বিরুদ্ধে প্রতিরোধের আগুন জ্বেলে রুখে দাঁড়িয়েছিল এদেশের ছাত্র সমাজ। ১৭ সেপ্টেম্বর ১৯৬২, এই শিক্ষা সংকোচন নীতি বাতিলের দাবিতে আহবান করা হয় সর্বাত্মক হরতাল। হাজার হাজার শিক্ষার্থীর সাথে সর্বস্তরের জনতার মিছিলে দফায় দফায় পুলিশ হামলা চালায় ও গুলিবর্ষণে ঢাকায় শহিদ হন বাবুল (ছাত্র), গোলাম মোস্তফ (বাস কন্ডাক্টর) ও ওয়াজিউল্লাহ (গৃহভৃত্য) । টঙ্গীতে শ্রমিকদের মিছিলে গুলি চালালে শহিদ হন সুন্দর আলী নামে একজন শ্রমিক। তাই বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়ে আইয়ুব সরকারের যে শিক্ষা সংকোচন নীতি এদেশের ছাত্রসমাজ প্রতিহত করেছিল। শরীফ কমিশন প্রণীত শিক্ষানীতি আর স্বাধীনতাত্তোর দেশে প্রণীত সবকটি শিক্ষানীতির অন্তর্গত মৌলচরিত্র এক ও অভিন্ন। নতুন মোড়কে হাজির করা হয়েছে শিক্ষার বাণিজ্যিক দৃষ্টিভঙ্গি। সর্বজনীন বিজ্ঞানভিত্তিক সেকুলার বৈষম্যহীন একই ধারার গণতান্ত্রিক শিক্ষার দাবি উপেক্ষিত। শিক্ষার প্রধান ধারাই এখন বেসরকারি ধারা। বর্তমানে দেশের মোট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৯৫ ভাগই বেসরকারি। শিক্ষার মর্মবস্তুকে ধ্বংস করে সিলেবাসে যুক্ত করা হয়েছে সাম্প্রদায়িক ধ্যান-ধারনা। শিক্ষা আজ বহুধারায় বিভক্ত। শিক্ষার সংকট বহুগুণে বেড়েছে। জাতীয় বাজেটে শিক্ষাখাতে বরাদ্দ কমছে প্রতিবছর। এ বছর শিক্ষাখাতে মোট বাজেটের মাত্র ১১.৫৭ শতাংশ। শিক্ষাখাতে বরাদ্দ করা হয়েছে যা দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সর্বনিম্ন। ইউনেস্কোর প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের শিক্ষা খাতে মোট খরচের ৭১ শতাংশ বহন করে শিক্ষার্থীদের পরিবার। পরিবারপিছু খরচের বিবেচনায় এই হার বিশ্বের মধ্যে অন্যতম সর্বোচ্চ। দেশের ৫৫ শতাংশ শিশু প্রাক-প্রাথমিক স্তরে বিভিন্ন ধরনের বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হয়। প্রাথমিক স্তরে মোট বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের হার ২২ শতাংশ, সংখ্যায় ২৯ হাজার।

মাধ্যমিক পর্যায়ে এই হার ৯৪ শতাংশ, যা বিশ্বে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। ছয় হাজার বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বিপরীতে সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে মাত্র ৯০০টি। শিক্ষার্থীদের গিনিপিগ বানিয়ে প্রতিনিয়ত চলছে নানান পরীক্ষা-নীরিক্ষা। সম্প্রতি ‘জাতীয় শিক্ষাক্রম ২০২০’ এর প্রয়োগ শুরু হয়েছে। কারিকুলামে বিজ্ঞান শিক্ষাকে সংকুচিত করা হয়েছে, শিক্ষাকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে কারিগরিকরণের দিকে। পাঠদান ও পরীক্ষাপদ্ধতিতে যে পরিবর্তন আনা হয়েছে তা চমকপ্রদ হলেও অবকাঠামোসহ শিক্ষাব্যবস্থার খোলনলচে বদল ব্যতীত এটির প্রয়োগ নতুন করে শুধু জটিলতাই তৈরি করবে। নতুন পদ্ধতির সাপেক্ষে দক্ষ শিক্ষক গড়ে তোলার জন্য প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ ও অর্থ বরাদ্দ করা হয়নি। বছরের শুরুতে ভুলে ভরা নিম্ন মানের পাঠ্যপুস্তক তুলে দেয়া হয়েছে শিক্ষার্থীদের হাতে। অর্ধেক বছর পেরিয়ে গেলেও অনেক শিক্ষার্থীর হাতে এখনও বই পৌঁছায়নি। প্রতিটি শিক্ষা উপকরণের নাম ঊর্ধ্বমুখী। তার সাথে যুক্ত আছে বর্ধিত বেতন ফি। এই ক্রমবর্ধমান শিক্ষা ব্যয়ের ফলে সৃষ্ট আর্থিক সংকটে করে পড়ছে দেশের বিশাল অংশের শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে সরকারের অনুগামী প্রতিষ্ঠানে পরিণত করা হয়েছে। উচ্চশিক্ষা কমিশন গঠন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশাসনের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠোকার আয়োজন চলছে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলিতে বজায় সন্ত্রাস-দখলদারিত্ব ।

বিজ্ঞাপন

দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা যেমন বহু ধারায় বিভক্ত তেমনি সমগ্র জাতিও আজ বহু ধারায় বিভক্ত হয়ে পড়েছে, মানুষের মধ্যে পারস্পারিক শ্রদ্ধা, ভালোবাসা, সম্প্রীতির পরিবর্তে হিংসা-বিদ্বেষ, হানাহানি, খুন, হত্যা, সাম্প্রদায়িকতা বহুগুণে বেড়েছে। বেড়েছে আত্মহত্যা, ধর্ষণ, নির্যাতন এবং বলাৎকারের মতো ঘটানাও। দেশের সার্বিক উন্নয়ন ও কল্যেণের লক্ষ্যে শিক্ষার চলমান সংকট ও সংকোচন নীতির পরিবর্তে সবার জন্য একই ধারার, বিজ্ঞানভিত্তিক, স্যাকুলার, দেশপ্রেম ও মানবিক গুণসমৃদ্ধ শিক্ষানীতি প্রণয়ন এবং বাস্তবায়ন করতে হবে। একটি উন্নত জাতি হিসেবে নিজেদের আত্মপ্রকাশ করতে একই ধারার, বিজ্ঞানভিত্তিক, ধর্মনিরপেক্ষ, বাস্তব জ্ঞান সমৃদ্ধ মানবিক শিক্ষার বিকল্প নেই। শিক্ষার যারা কারিগর তাদের সামাজিক মর্যাদা নিশ্চিত করা এখন সময়ের দাবী। শিক্ষার সামগ্রিক বৈষম্য রোধে সরকারগুলোকে পাঁচ দফা সুপারিশ প্রদান করেছে ইউনেসকো।

প্রাক-প্রাথমিকে এক বছর এবং প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরে ১২ বছরের শিক্ষা বিনা মূল্যে নিশ্চিত করার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করা। সরকারি ও বেসরকারি সব শিক্ষাব্যবস্থার জন্য মানদণ্ড নির্ধারণ এবং তা বাস্তবায়নে রাষ্ট্রের সামর্থ্য বৃদ্ধি এবং সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জন্য একই ধরনের কর্মপদ্ধতি ও তদারকি ব্যবস্থা প্রণয়নের সুপারিশ করে সংস্থাটি। এ ছাড়া সুপারিশ রয়েছে, সর্বজনীন কল্যাণে সমগ্র শিক্ষাব্যবস্থায় উদ্ভাবনের প্রসার ঘটানো এবং সর্বজনীন শিক্ষাব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সরকারি শিক্ষানীতি প্রণয়নে স্বচ্ছতা, অংশগ্রহণ ও একাগ্রতা নিশ্চিতকরণের। ইউনেস্কোর এই সুপারিশের সাথে আমরাও একমত পোষণ করছি রাষ্ট্রের সার্বিক কল্যাণ , উন্নয়ন, গণতান্ত্রিক চেতনার সমৃদ্ধি ও ঐক্য প্রতিষ্ঠায় এবং দেশপ্রেমসমৃদ্ধ মানবিক দৃষ্টিসম্পন্ন মানুষ গড়ে তোলার জন্য। শিক্ষার মাধ্যম হতে হবে মাতৃভাষা বাংলা।

যারা সার্বজনীন, স্যাকুলার, বিজ্ঞানভিত্তিক একই পদ্ধতির মানবিক, সৃজনশীল শিক্ষার জন্য জীবন দিল এই শিক্ষা দিবসে সার্বজনীন, স্যাকুলার, বিজ্ঞানভিত্তিক একই পদ্ধতির মানবিক, সৃজনশীল শিক্ষা প্রচলনের কার্যকর উদ্যোগ নেওয়ার মধ্য দিয়ে রাষ্ট্র এবং সরকার তাদের জীবন দানের যথাযোগ্য মর্যাদা দিবেন বলে আমরা বিশ্বাস রাখি এবং এর মাধ্যমে আমাদের সোনার বাংলা কাঙ্খিত লক্ষ্য অর্জন করবেন। শিক্ষা হয়ে উঠবে সবার এবং মানবিক। প্রতিষ্ঠিত শিক্ষার মৌলিক অধিকার।

বিজ্ঞাপন

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল rajdhanitimes24.com এ লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয়- মতামত, সাহিত্য, ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার ছবিসহ লেখাটি পাঠিয়ে দিন rajdhanitimes24@gmail.com  এই ঠিকানায়।

শীর্ষ সংবাদ:
কোন বিশৃঙ্খলা ছাড়াই শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সিলেটে এ বছর কুরবানী পশু প্রস্তুত ৪ লাখ ৩০৩৯৭ দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা নিজ অবস্থান থেকে সতর্ক থাকলে সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়া সম্ভব: ডিসি আরিফুজ্জামান এমপি আনারের লাশ পাওয়ার সম্ভাবনা নেই: ডিবি মতলব উত্তরে বিকাশ ব্যবসায়ীর আত্মহত্যা এমপি আনোয়ারুল হত্যা: সন্দেহভাজন তিনজন ৩ দিনে ফ্ল্যাট থেকে বের হন ঠাকুরগাঁওয়ে জিংক ধানের উপকারিতা ও গুনাগুণ সম্পর্কে কৃষকদের অবহিতকরণ দ্বিতীয় ধাপে আরও কমল ভোটের হার, এবার রাজনীতিকে দুষলেন সিইসি ভূরুঙ্গামারীতে মোবাইল কিনে না দেওয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীর আত্মহত্যা কাউখালীতে রাত পোহালেই উপজেলা পরিষদ নির্বাচন রাত পোহালেই শেরপুরের দুই উপজেলায় ভোট মতলব উত্তরে সাজাপ্রাপ্ত আসামি ১৭ বছর পর আটক ইরানের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুর খবরে বেড়েছে তেলের দাম কচুয়ায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে উপবৃত্তির টাকা আত্মসাতের অভিযোগ সাতক্ষীরার আম দেশের গন্ডি পেরিয়ে এখন ইউরোপে লালমোহনে দুদকের উদ্যোগে ২য় পর্বের বিতর্ক প্রতিযোগিতা সম্পন্ন ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির মরদেহ উদ্ধার ভোলায় ষষ্ঠ ধাপে ভোটগ্রহণ আগামীকাল ডিবি কার্যালয়ে হেফাজত নেতা মামুনুল হক যশোরে ভোট বর্জনের আহ্বানে বিএনপির লিফলেট বিতরণ